বাংলা ও বাঙালি :

  মুক্তিযুদ্ধের স্মারকচিহ্ন যশোর রোডের শতবর্ষী গাছ কাটতেই হবে?      বাংলা একাডেমি সম্মানসূচক ফেলোশিপ পেলেন সাত বিশিষ্টজন      ‘সঙ্গীত জাগাচ্ছে প্রাণ’      মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি আগলে কোলকাতা      বিজয় দিবসে অসাম্পদায়িক দেশ গড়ার শপথ      জাতীয় স্মৃতিসৌধে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা      আজ স্বাধীনতার ৪৬তম বিজয় উৎসবের দিন      “ফাঁসির মঞ্চে গিয়েও আমি বলবো, আমি বাঙালি, বাংলা আমার দেশ, বাংলা আমার ভাষা।” – জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান      “আমার সোনার বাংলা, আমি তোমায় ভালোবাসি। চিরদিন তোমার আকাশ, তোমার বাতাস, আমার প্রাণে বাজায় বাঁশি ॥” – কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর      “বাঙালি ঐক্যবদ্ধ হলে অসাধ্য সাধন করতে পারে .. “ – শেখ হাসিনা      “বাংলাদেশের স্বাধীনতা ছাড়া, আমাদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার আর কোন বিকল্প নেই .. “ – তাজউদ্দীন আহমদ      “মোদের গর্ব, মোদের আশা, আ মরি বাংলা ভাষা .. “ – অতুল প্রসাদ সেন      “এমন দেশটি কোথাও খুঁজে পাবে নাকো তুমি, সকল দেশের রানী সে যে আমার জন্মভূমি, .. “ – দ্বিজেন্দ্র লাল রায়      “আমরা হিন্দু কিংবা মুসলমান যেমন সত্য, তার চেয়েও বেশি সত্য আমরা বাঙালি ….” – ড. মুহাম্মদ শহিদুল্লাহ      “যে সবে বঙ্গেত জন্মি হিংসে বঙ্গবাণী। সে সব কাহার জন্ম নির্ণয় ন জানি॥ …” – কবি আব্দুল হাকিম   
bangla font dekha na gele


সর্বশেষ খবর :

  দেশে ফিরে গেলেন প্রণব মুখার্জি      মেয়র আইভী অসুস্থ, ল্যাবএইড হাসপাতালে ভর্তি      ঘূর্ণিঝড়ে বিধ্বস্ত ব্রিটেন, ৫ হাজার বাড়িতে বিদ্যুৎ নেই      নিউইয়র্কের রাস্তায় অ্যালানের ঠোঁটে ঠোঁট রেখে ঘনিষ্ঠ প্রিয়াঙ্কা      দিল্লির মাদাম তুসোর মিউজিয়ামে সানি!      অক্সফোর্ডে প্রথম ভারতীয় সিনেমা প্যাডম্যান      ”নারীর শরীরের চেয়ে সুন্দর পৃথিবীতে কিছু নেই ”      সেনাবাহিনীর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে শক্তি প্রদর্শন করবে পিয়ংইয়ং      ফেক নিউজ পুরস্কার ঘোষণা ট্রাম্পের!      কাজাখস্থানে বাসে ভয়াবহ আগুন, নিহত ৫২      মেলানিয়া কত নম্বর স্ত্রী ট্রাম্পের?      বাজিগর! হারের পরও বর্ষসেরা বিরাটই      সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে সব রাজ্যে মুক্ত ‘পদ্মাবত’      তাপমাত্রা মাইনাস ৬৭ ডিগ্রি! চোখের পাতায় জমছে বরফ !!      গেন্ডারিয়ায় দুই মোটরসাইকেট আরোহী নিহত   

শুক্রবার, ২৯ ডিসেম্বর ২০১৭

‘সঙ্গীত জাগাচ্ছে প্রাণ’

বেঙ্গল উচ্চাঙ্গসঙ্গীত উৎসব





বাঙালিনিউজ, জাতীয়ডেস্ক: বেঙ্গল উচ্চাঙ্গসঙ্গীত উৎসবের এবারের আয়োজনের প্রতিপাদ্য- ‘সঙ্গীত জাগায় প্রাণ’।বাস্তবেও তাই ঘটেছে- সঙ্গীত জাগাচ্ছে প্রাণ। সন্ধ্যা থেকে ভোররাত অব্দি উপমহাদেশের খ্যাতিমান ওস্তাদ-পণ্ডিতদের পাশাপাশি সঙ্গীত শিক্ষার্থীদের পরিবেশনায় দারুণ সময় পার করছেন সঙ্গীতপ্রেমী রাজধানীবাসী। যানজট, প্রবেশের দীর্ঘ সারি, অনুষ্ঠানস্থলে একবারের বেশি প্রবেশে বিধিনিষেধ, পার্কিংয়ের ব্যবস্থা না থাকাসহ কত প্রতিবন্ধকতাকে প্রতিদিন জয় করে বেঙ্গল উচ্চাঙ্গসঙ্গীত উৎসবে যোগ দিচ্ছেন রাজধানীবাসী। ধানমণ্ডির শেখ কামাল আবাহনী মাঠে এ উৎসবের ষষ্ঠ আসরের তৃতীয় দিন ছিল গতকাল বৃহস্পতিবার। বেঙ্গল পরম্পরা সঙ্গীতালয়ের শিক্ষার্থীদের সেতার বাদনের মধ্য দিয়ে শুরু হওয়া আয়োজনের সমাপ্তিরেখা টানেন পণ্ডিত অজয় চক্রবর্তী তার কণ্ঠের জাদুতে। এর মধ্যে ঘাটম আর কঞ্জিরা যুগলবন্দি, সরোদ-বাঁশি আর কণ্ঠে খেলা করছে নানা সুরের ইন্দ্রজাল। বেঙ্গল ফাউন্ডেশন আয়োজিত ও স্কয়ার নিবেদিত এ উৎসবে সহযোগিতা করছে ব্র্যাক ব্যাংক। এবারের উৎসব উৎসর্গ করা হয়েছে শিক্ষাবিদ-সংস্কৃতিজন ইমেরিটাস অধ্যাপক ড.আনিসুজ্জামানকে।

গতকাল উৎসবের তৃতীয় দিনের আয়োজন শুরু হয় বেঙ্গল পরম্পরা সঙ্গীতালয়ের শিক্ষার্থীদের সেতার বাদনের মধ্য দিয়ে। সেতার দলে ছিলেন প্রসেনজিৎ মণ্ডল, টি এম সেলিম রেজা, রিঙ্কু চন্দ্র দাস, মেহরীন আলম, জ্যোতি ব্যানার্জি, মোহাম্মাদ কাউসার এবং জাহাঙ্গীর আলম শ্রাবণ। তাদের সঙ্গে তবলায় ছিলেন প্রশান্ত ভৌমিক ও সুপান্থ মজুমদার। পণ্ডিত কুশল কুমার দাসের কম্পোজিশনে তারা কিরওয়ানি রাগে সেতার অর্কেস্ট্রা পরিবেশন করেন। এরপর শিল্পীদের হাতে উৎসব স্মারক তুলে দেন গ্র্যামি বিজয়ী শিল্পী বিদ্বান ভিক্ষু বিনায়ক রাম। তিনি তরুণ শিল্পীদের আশীর্বাদ করে বলেন, ওরা দারুণ বাজিয়েছে। দারুণ সুরেলা পরিবেশনার জন্য তাদের ধন্যবাদ।

এরপর কর্ণাটকি যন্ত্রসঙ্গীত নিয়ে মঞ্চে আসেন পিতা-পুত্র বিদ্বান ভিক্ষু বিনায়ক রাম ও সেলভাগণেশ বিনায়ক রাম। ভিক্ষু বিনায়ক রাম বাজিয়ে শোনান ঘাটম আর কঞ্জিরা বাদন করেন সেলভাগণেশ বিনায়ক রাম। তাদের সঙ্গে কাঞ্জিরা ও কোনাক্কল বাজিয়েছেন স্বামীনাথন এবং মোরসিংয়ে ছিলেন এ গণেশন। নিজেদের পরিবেশনার শুরুতেই তারা ঘাটমে শিব তাণ্ডব ও সেভেন অ্যান্ড হাফ বিট কম্পোজিশন বাজান। পরে তারা গুরুবন্দনা ও গণপতি তালম বাজিয়ে দর্শকদের মুগ্ধ করেন। শিল্পীদের হাতে উৎসব স্মারক তুলে দেন ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারপারসন স্যার ফজলে হাসান আবেদ।

এরপর খেয়াল পরিবেশন করেন সরকারি সঙ্গীত কলেজের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা। ১৮ সদস্যের এ দলটিতে ছিলেন আশা খন্দকার, বিটু কুমার শীল, দেবজানি দাস, ড. ফকির সুমন, জি এম সাইফুল ইসলাম, জোহরা হোসাইন, মল্লিকা ওঝা, গোলাম মোস্তফা, মমিন মিয়া, মুরাদ হোসাইন, নিউটন বৈরাগী, নিত্য গোপাল ঠাকুর, অর্বি শর্মি, শারমিন সুলতানা স্মৃতি, কৃষ্ণ গোপাল, সুমা বেপারী, সুস্মিত সাহা ও তমালিকা হালদার। দলটি পরিবেশন করে রাগ মালকোষ।

এরপর সরোদ বাদন করেন ভারতের প্রখ্যাত সরোদশিল্পী আবির হোসেন। তার সঙ্গে তবলায় সঙ্গত করেন যোগেশ সামসি। আবির হোসেন সরোদে রাগ আভোগী পরিবেশন করেন। পরে বাংলাদেশের প্রখ্যাত বংশীবাদক গাজী আবদুল হাকিম বাঁশিতে সুর তোলেন। বাঁশির সুর থামতেই মঞ্চে আসেন ভারতের পণ্ডিত উদয় ভাওয়ালকর। বেঙ্গল পরম্পরা সঙ্গীতালয়ের এ শিক্ষকের পরিবেশনায় ছিল ধ্রুপদ। তার কণ্ঠের মাধুর্যে মাঠে সৃষ্টি হয় এক অনন্য পরিবেশ। তিনি মঞ্চ থেকে নামতেই বেহালা হাতে মঞ্চে আসেন ভারতের বিদুষী কালা রামনাথ। তৃতীয় দিনের শেষ পরিবেশনায় খেয়াল পরিবেশন করেন পণ্ডিত অজয় চক্রবর্তী। উপমহাদেশের প্রখ্যাত সঙ্গীতজ্ঞদের পরিবেশনার পাশাপাশি উৎসব প্রাঙ্গণে চলছে বাংলাদেশের সঙ্গীত সাধক ও তাদের জীবনী নিয়ে সচিত্র প্রদর্শনী। এ ছাড়াও বেঙ্গল ইনস্টিটিউট অব আর্কিটেকচার, ল্যান্ডস্কেপস অ্যান্ড সেটলমেন্ট আয়োজন করেছে ‘সাধারণের জায়গা’ শীর্ষক স্থাপত্য প্রদর্শনী।

আজকের আয়োজন :আজ শুক্রবার উৎসবের চতুর্থ দিনের আয়োজন শুরু হবে শাস্ত্রীয় নৃত্য পরিবেশনের মধ্য দিয়ে। মণিপুরি, ভরতনাট্যম ও কত্থক নৃত্য পরিবেশন করবেন সুইটি দাস, অমিত চৌধুরী, স্নাতা শাহরিন, সুদেষ্ণা স্বয়ম্প্রভা, মেহরাজ হক এবং জুয়াইরিয়াহ মৌলি। সরোদ বাদনে অংশ নেবেন বেঙ্গল পরম্পরা সঙ্গীতালয়ের শিক্ষার্থীরা। এরপর খেয়াল পরিবেশন করবেন ওস্তাদ রাশিদ খান, সরোদ বাদন করবেন পণ্ডিত তেজেন্দ্রনারায়ণ মজুমদার, বেহালা বাদন করবেন ড. মাইশুর মঞ্জুনাথ, খেয়াল পরিবেশন করবেন পণ্ডিত যশরাজ ও চেলো বাদন করবেন সাসকিয়া রাও দ্য-হাস। সবশেষে সেতার বাদন করবেন পণ্ডিত বুদ্ধাদিত্য মুখার্জি।

বুধবার মধ্যরাতের আয়োজন: বুধবার মধ্যরাতে খেয়াল পরিবেশন করেন পণ্ডিত উলহাস কশলকর। প্রথমে তিনি পরিবেশন করেন রাগ যোগকোষ, পরে গেয়ে শোনান সোহিনী রাগ। তার সঙ্গে তবলায় সঙ্গত করেন সুরেশ তলওয়ালকার।

পরিবেশনা শেষে শিল্পীদের হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেলহক।এরপর সেতার পরিবেশন করেন ওস্তাদ শাহিদ পারভেজ খাঁ। তার সঙ্গে তবলায় ছিলেন অভিজিৎ ব্যানার্জি। তিনি শোনান বাগেশ্রী রাগ। পরিবেশনা শেষে শাহিদ পারভেজ খাঁর হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেন ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনাম। এর পর বেঙ্গল পরম্পরা সঙ্গীতালয়ের শিক্ষার্থী অভিজিত কুণ্ডু পরিবেশন করেন ধ্রুপদ। শিল্পীকে পাখোয়াজে সঙ্গত করেন সুখাদ মুণ্ডে, তানপুরায় ছিলেন জ্যাতাশ্রী রায় চৌধুরী ও টিংকু কুমার শীল। অভিজিৎ কুণ্ডু পরিবেশন করেন রাগ বেহাগ। পরিবেশনা শেষে শিল্পীর হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেন বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের ট্রাস্টি শাহ সৈয়দ কামাল।

দ্বিতীয় দিনের আয়োজন শেষ হয় পণ্ডিত রনু মজুমদারের বাঁশি এবং পণ্ডিত দেবজ্যোতি বোসের সরোদের যুগলবন্দি পরিবেশনার মধ্য দিয়ে। তাদের সঙ্গে তবলায় ছিলেন যোগেশ সামসি এবং অভিজিৎ ব্যানার্জি। তারা পরিবেশন করেন রাগ আহীর ভৈরব। শেষে দর্শকের অনুরোধে তারা ভাটিয়ালি ধুন পরিবেশন করেন। পরিবেশনা শেষ হলে তাদের হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেন বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আবুল খায়ের।

এবারের বেঙ্গল উচ্চাঙ্গসঙ্গীত উৎসবের সম্প্রচার সহযোগী চ্যানেল আই, মেডিকেল পার্টনার স্কয়ার হাসপাতাল, ইভেন্ট ব্যবস্থাপক ব্লুজ কমিউনিকেশন্স এবং আয়োজন সহযোগী ইনডেক্স গ্রুপ, বেঙ্গল ডিজিটাল, বেঙ্গল বই ও বেঙ্গল পরম্পরা সঙ্গীতালয়। সার্বিক সহযোগিতায় রয়েছে সিঙ্গাপুরের পারফেক্ট হারমনি। সূত্র:সমকাল।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Print This Page


এই রকম আরও খবর